মধুপুর ধনবাড়ীর অবৈধ ইটভাটার কারনে হুমকিতে শালবন ও জীববৈচিত্র্য

লেখক: Rakib hossain
প্রকাশ: 5 months ago

বুলবুল হোসেন:

টাঙ্গাইল জেলার মধুপুর ধনবাড়ীর অবৈধ ইটভাটার কারনে মধুপুরের প্রাকৃতিক শালবন ও জীববৈচিত্র্য আজ ধ্বংসের ধারপান্তে। সেই সাথে জনস্বাস্থ্যের হুমকিতে আছে এলাকায় বসবাস করা জন সাধারণ। বিশেষ করে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে আছে নারী ও শিশুরা। টাঙ্গাইল পরিবেশ অধিদপ্তরের তথ্য মতে জানা যায় মধুপুর ধনবাড়ী উপজেলায় ৪০ টি ইটভাটা আছে। এর মধ্যে ২ টি ইটভাটার পরিবেশগত ছাড়পত্র বা সরকারী অনুমোদন আছে, বাকী ৩৮টি ইটভাটার কোন অনুমোদন নেই। এইসব অবৈধ ইটভাটা চলছে বছরের পর বছর যেন দেখার কেউ নাই। আর অবৈধ ইটভাটা গুলোতে অবাধে পোড়ানো হচ্ছে প্রাকৃতিক শালবনের গাছ। এইসব ইটভাটার কারনে শালবন প্রায় ধ্বংসের পথে। বন ধ্বংস হওয়ার কারণে ধ্বংস হচ্ছে বনে বসবাস করা শত শত প্রজাতির পশু-পাখি। বনে খাদ্য সংকটের পাশাপাশি ইটভাটার ধোয়ার কারনে বিভিন্ন প্রাণী বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। এইসব অবৈধ ইটভাটা এখনি বন্ধ করতে না পারলে আগামী কয়েক বছরের মধ্যে মধুপুর শালবন বলে আর কিছু থাকবে না। এ বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর টাঙ্গাইলের উপপরিচালক জমির উদ্দিন বলেন নির্বাচনের কারনে এইসব অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হয়নি। এখন থেকে নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে। মধুপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন আমি তো নতুন এসেছি তাই এই বিষয়টি আমার জানা নেই, আমি খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নিবো। বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) টাঙ্গাইল শাখার সাধারন সম্পাদক সহিদ মাহমুদ বলেন মধুপুর শালবনকে টাঙ্গাইলের ফুসফুস বলা হয় তাই এই শালবন রক্ষা করা খুবই জরুরী, আমি আশা করবো এ বিষয়ে প্রশাসন পদক্ষেপ নিবে। পরিবেশবাদি সংগঠন সবুজ পৃথিবীর পরিচালক শারমিন আলম বলেন যেখানে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পরিবেশ রক্ষায় গুরুত্ব দেন সেখানে কিভাবে প্রকাশে এভাবে শালবনের গাছ কেটে অবৈধ ইটভাটায় ব্যবহার হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে আমাদের মধুপুর প্রাকৃতিক শালবন ও জীববৈচিত্র্য ধ্বংস হয়ে যাবে।

error: Content is protected !!