শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ১১:৩৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
শিরোনাম:
যশোরে বিষধর সাপের কামড়ে মাদ্রাসা ছাত্রের মৃত্যু গাজীপুরে নারী সাংবাদিকের উপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন রাজবাড়ীতে বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত ৫ নয়া দিল্লি রাষ্ট্রীয় সফরে পৌছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনিরামপুরে ছেলের আঘাতে মা হাসপাতালে অতপর থানায় অভিযোগ বিষধর রাসেল ভাইপার এখন ২৮ জেলায় একমাত্র আওয়ামীলীগই স্বাধীনতার স্ব-পক্ষের দল মেহের আফরোজ চুমকি এমপি রাজগঞ্জের ঝাঁপায় ঈদ পুণর্মিলনী অনুষ্ঠান ও বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত  সিলেট ও সুনামগঞ্জের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের উদ্ধারে সেনাবাহিনীর দায়িত্বপ্রাপ্ত মোবাইল নং ১৪তম মালয়েশিয়া গিফটস ফেয়ার এ বাংলাদেশ-এর অংশগ্রহণে উপচে পড়া ভিড় স্টলে  শ্রীনগরে সাংবাদিকের উপর আঃলীগ নেতার হামলার প্রতিবাদে এলাকাবাসীর মানববন্ধন কালিগঞ্জে শেখ হাসিনার আদর্শের সৈনিক হিসেবে দেশের তরে কাজ করবো মেহের আফরোজ চুমকি এমপি শ্রীপুরের প্রয়াত শিক্ষক কাজী ফয়জুর রহমানের স্মরণে শোকসভা ইলেকশন মনিটরিং ফোরামের চেয়ারম্যান যুক্তরাজ্য ও তুরস্ক সফর যশোরে লোকসানে চামড়া বিক্রি করে ফিরে আসছেন ব্যবসায়ীরা পানিতে তলিয়ে আছে সুনামগঞ্জের অনেক এলাকা যশোরে প্লাস্টিক কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ড শ্রীনগরে পূর্ব শত্রুতার জেরে সাংবাদিকের উপর নৃশংস হামলা থানায় অভিযোগ  সিরাজগঞ্জ তাড়াশে মাংস ভাগাভাগি নিয়ে সংঘর্ষে নারীসহ আহত ১০ মোটরসাইকেলের ধাক্কায় চালক ও বৃদ্ধা নিহত ঝিকরগাছায় মধ্যবিত্তদের মাঝে শাড়ি-লুঙ্গি বিতরণে ঈদ সুপার সপ কুরবানি কর মনের পশু টুংটাং শব্দে শেষ মুহূর্তে ব্যস্ত সময় পার করছেন কর্মকারেরা  ঈদে সড়কে ঘরমুখী মানুষের চাপ  গাজীপুরে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ সলঙ্গায় অজ্ঞাত ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরহী  এক যুবক নিহত খাগড়াছড়িতে শতাধিক ঔষধি ও ফলজ সহ বৃক্ষরোপণ করেন পুলিশ সুপার মুক্তা ধর পিপিএম (বার) ঘূর্ণিঝড়ের রেমালে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটার পক্ষ থেকে নগদ অর্থ প্রদান বিআরটিএ অফিসের শত দালালের মাঝে একজন পরিশ্রমি ভালো মানুষ মো: কামরুজ্জামান সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সম্মুখে মানববন্ধন কর্মসূচি উপজেলা বাসীকে পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম শালু

দেশের সর্ববৃহৎ সমলয় পদ্ধতিতে বোরো চাষ হচ্ছে ঠাকুরগাঁওয়ে উৎপাদনের হার ও মান বৃদ্ধির পাশাপাশি কমছে কৃষিশ্রমিকের সংকট

উপজেলা / জেলা-প্রতিনিধি / ১৮ বার পড়া হয়েছে
সময় শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ১১:৩৩ অপরাহ্ন

মোঃ রাজু রংপুর বিভাগীয় প্রতিনিধি :
শিল্পায়নে অনুন্নত হলেও কৃষিতে উন্নত ও স্বনির্ভর দেশের উত্তরের জেলা ঠাকুরগাঁও। এ জেলায় উল্লেখযোগ্য তেমন কোন শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে না উঠলেও এখানকার কৃষির মান ও উৎপাদনের হারের কারনে অন্যান্য জেলা গুলির তুলনায় সহজেই আলাদা করা যায় ঠাকুরগাঁওকে। কৃষি নির্ভর হওয়ায় তাই এ জেলার কুষিতে প্রতিনিয়ত আসছে যুগোপযোগী নানা পরিবর্তন।
দেশের বিভিন্ন জেলায় এ সমলয় পদ্ধতিতে পরীক্ষামূলক চাষাবাদ করা হলেও দেশের সর্ববৃহৎ সমলয় পদ্ধতিতে বোরো চাষ হচ্ছে ঠাকুরগাঁওয়ে। কৃষি বিভাগের সহযোগীতায় জেলার রাণীশংকৈল উপজেলার নেকমরদ গ্রামের ৭ জন কৃষকের ১১০ একর জমিতে সমলয় পদ্ধতিতে চাষ করা হচ্ছে বোর ধান। কৃষিতে যান্ত্রিকীকরণ, কম সময়ে, কম খরচে অধিক উৎপাদন ও শ্রমিক সংকট নিরশনের লক্ষ্যে এ পদ্ধতিতে চাষাবাদে সুফল পেতে শুরু করেছেন কৃষকরা।
এছাড়াও ফসল কাটার সময় শ্রমিক সংকট এখন বাংলাদেশে নিত্যবছরের সমস্যা। শিল্পায়নের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ প্রভাবে কয়েক দশক ধরে মানুষ শহরমুখী। তাই প্রতিনিয়ত কমছে কৃষি শ্রমিক। সামনে এ সংকট আরও বাড়বে। এর একটা সমাধান হতে পারে কৃষি যান্ত্রিকীকরণ ও সমলয় চায়।
বর্তমান সরকার কৃষিকে আধুনিক ও লাভজনক করতে টেকসই যান্ত্রিকীকরণের বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। যার একটি হচ্ছে সমবায়ভিত্তিক সমলয় চাষাবাদ পদ্ধতি। অপরদিকে কৃষকরা অভিযোগ করেন যে ধান চাষ লাভজনক নয়। এটিকে লাভজনক করার অন্যতম উপায় হলো উৎপাদন ব্যয় হ্রাস করা। আর উৎপাদন ব্যয় হ্রাস করতে হলে বিকল্প নেই সমলয় চাষের । চারা উৎপাদন থেকে কর্তন পর্যন্ত ফসল উৎপাদনের প্রতিটি পদক্ষেপেই রয়েছে মেশিনের ব্যবহার। সিড সোইং মেশিনের সাহায্যে ট্রেতে ধানের বীজের মাধ্যমে চারা উৎপাদন করা হয়। এরপর রাইস ট্রান্স প্লান্টার মেশিনের সাহায্যে সেই চারা জমিতে বপন করা হয। এতে সনাতন পদ্ধতিতে একর প্রতি খরচ হতো ২০০০ থেকে ২২০০ টাকা। মেশিনের মাধ্যমে চারা রোপন করায় খরচ হচ্ছে আর ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা। জমিতে সেচের মাত্রা পরিমাপের জন্য লাগানো হয়েছে ইউ ডি পাইপ। এতে পাঁচটি সেচের খরচ কমেছে বলে জানান কৃষক। এই পদ্ধতিতে ধান কাটা হবে কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিনের মাধ্যমে যেখানে কর্তন ও মারাই একই সাথে করা হবে। সমলয় পদ্ধতিতে ধান চাষের পাশাপাশি জমির আইলে লাগানো হয়েছে লাউ, ঝিঙ্গা ও কুমড়ার গাছ। এতে পূরণ হোচ্ছে পারিবারিক সবজির পুষ্টি চাহিদাও । সমলয় পদ্ধতিতে চাষাবাদের ফলে একই জমিতে বোরো আউশ আমন তিনটি ফসল উৎপাদন করা যাচ্ছে ফলে খাদ্যশস্যের উৎপাদন বাড়ার পাশাপাশি বাড়ছে কৃষি জমির নিবিরতা । ফসলের পোকামাকড়ের উপদ্রব কম হওয়ায় কমছে কীটনাশক খরচ।
সমলয় পদ্ধতিতে চাষ করা কৃষক অখলাক হোসেন, মজিবর রহমান, মাহফুজুর রহমান জানান, আমরা আগে এ পদ্ধতি সম্পর্কে কিছুই জানতামনা। আমরা যে যার মত আলাদাভাবে চাষাবাদ করতাম। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার মাধ্যমে আমরা এ পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে পেরে আগ্রহ প্রকাশ করি। সমলয় পদ্ধতিতে চাষ করে একদিকে আমাদের যেমন কৃষি শ্রমিকের সংকট নিরশন সহ সেচ খরচ কমেছে , অন্যদিকে আমরা একই সময়ে ফসল ঘরে তুলতে পারবো এবং উৎপাদনও অন্যান্য মৌসুমের তুলনায় বেশি হবে আশা করছি। ফলে দামও পাবো ভালো। এছাড়াও এ পদ্ধতিতে আমরা ফসলের মাঠের আইলে লাউ, ঝিঙা, কুমড়া সহ নানা বাড়তি ফসল ও সবজির চাষ করে একটা বাড়তি আয়েরও ব্যবস্থা হয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিস থেকেও আমরা সার ও বীজে ভালো ধরনের সহযোগীতা পেয়েছি।
রানীসংকৈল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সঞ্জয় দেবনাথ জানান,কৃষিতে যান্ত্রিকিকরন ও কম সময়ে অল্প করচে অতিরিক্ত খাদ্য উৎপাদনের লক্ষ্যে সরকার যে প্রোজেক্ট গ্রহণ করেছে তাতে আমাদের এ প্রোচেষ্টা একটা বড় ভ’মিকা রাখবে বলে অঅমি মনে করি। কারন আমাদের এটিই দেশের সর্ববৃহৎ সমলয় পদ্ধতিতে চাষের মাঠ। বর্তমান সরকার কৃষিকাজে যন্ত্রের ব্যবহার বাড়িয়ে কৃষিকে আধুনিক ও লাভজনক করতে নিরলস কাজ করছে। কৃষি যান্ত্রিকীকরণে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে নেয়া হয়েছে নানা প্রকল্প। পাশাপাশি কৃষি যান্ত্রিকীকরণ ত্বরান্বিত করতে দক্ষ জনবল তৈরিতে এরই মধ্যে মাঠপর্যায়ে কৃষি প্রকৌশলীর ২৮৪টি পদ সৃজন করা হয়েছে। ফলে আমাদের কৃষি যান্ত্রিকীকরণের দিকেই যাচ্ছে। ‘সমলয়’ পদ্ধতিতে চাষ করলে যন্ত্রের ব্যবহার সহজতর হবে। কৃষকের সময়, শ্রম ও খরচ কমবে। কৃষক লাভবান হবেন। এতে বাঁচবে কৃষক,বাঁচবে দেশ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

একাধিক নিউজ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error: Content is protected !!