শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ১২:১৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
শিরোনাম:
একমাত্র আওয়ামীলীগই স্বাধীনতার স্ব-পক্ষের দল মেহের আফরোজ চুমকি এমপি রাজগঞ্জের ঝাঁপায় ঈদ পুণর্মিলনী অনুষ্ঠান ও বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত  সিলেট ও সুনামগঞ্জের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের উদ্ধারে সেনাবাহিনীর দায়িত্বপ্রাপ্ত মোবাইল নং ১৪তম মালয়েশিয়া গিফটস ফেয়ার এ বাংলাদেশ-এর অংশগ্রহণে উপচে পড়া ভিড় স্টলে  শ্রীনগরে সাংবাদিকের উপর আঃলীগ নেতার হামলার প্রতিবাদে এলাকাবাসীর মানববন্ধন কালিগঞ্জে শেখ হাসিনার আদর্শের সৈনিক হিসেবে দেশের তরে কাজ করবো মেহের আফরোজ চুমকি এমপি শ্রীপুরের প্রয়াত শিক্ষক কাজী ফয়জুর রহমানের স্মরণে শোকসভা ইলেকশন মনিটরিং ফোরামের চেয়ারম্যান যুক্তরাজ্য ও তুরস্ক সফর যশোরে লোকসানে চামড়া বিক্রি করে ফিরে আসছেন ব্যবসায়ীরা পানিতে তলিয়ে আছে সুনামগঞ্জের অনেক এলাকা যশোরে প্লাস্টিক কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ড শ্রীনগরে পূর্ব শত্রুতার জেরে সাংবাদিকের উপর নৃশংস হামলা থানায় অভিযোগ  সিরাজগঞ্জ তাড়াশে মাংস ভাগাভাগি নিয়ে সংঘর্ষে নারীসহ আহত ১০ মোটরসাইকেলের ধাক্কায় চালক ও বৃদ্ধা নিহত ঝিকরগাছায় মধ্যবিত্তদের মাঝে শাড়ি-লুঙ্গি বিতরণে ঈদ সুপার সপ কুরবানি কর মনের পশু টুংটাং শব্দে শেষ মুহূর্তে ব্যস্ত সময় পার করছেন কর্মকারেরা  ঈদে সড়কে ঘরমুখী মানুষের চাপ  গাজীপুরে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ সলঙ্গায় অজ্ঞাত ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরহী  এক যুবক নিহত খাগড়াছড়িতে শতাধিক ঔষধি ও ফলজ সহ বৃক্ষরোপণ করেন পুলিশ সুপার মুক্তা ধর পিপিএম (বার) ঘূর্ণিঝড়ের রেমালে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটার পক্ষ থেকে নগদ অর্থ প্রদান বিআরটিএ অফিসের শত দালালের মাঝে একজন পরিশ্রমি ভালো মানুষ মো: কামরুজ্জামান সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সম্মুখে মানববন্ধন কর্মসূচি উপজেলা বাসীকে পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম শালু নড়াইলে মাছের ঘেরে গোসল করতে গিয়ে কিশোরের মৃত্যু ডুমুরিয়ায় ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ  নড়াইলে সড়ক দূর্ঘটনায় যুবক নিহত সাতক্ষীরা-য় কৃষক দলের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত  শ্রীপুরের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে গরুসহ গোয়াল পুড়ে ছাই  দেশ বাসীকে পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন  সংসদ সদস্য এ্যাড. বিপ্লব হাসান

কেটেছে আতঙ্ক, বদলাতে শুরু করেছে ভাগ্য স্বস্তির নিঃশ্বাস এখন উপকূল জুড়ে

উপজেলা / জেলা-প্রতিনিধি / ৪২ বার পড়া হয়েছে
সময় শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ১২:১৪ পূর্বাহ্ন

সুমন হাসান,কয়রা(খুলনা) প্রতিনিধি:

উপকূলীয় দক্ষিণাঞ্চল কয়রা উপজেলার ষাটের দশকে নির্মিত বেড়িবাঁধের অধিকাংশ জায়গায় নদীর বাঁধ ভঙ্গুর ও ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। প্রতি বছর লোনা পানিতে প্লাবিত হতো উপজেলাটি। যে কোনো দুর্যোগ সংকেত কিংবা হালকা বাতাসে বেড়িবাঁধ ভেঙে আবার প্লাবিত হওয়ার আতঙ্ক কাজ করত গোটা উপকূলীয় এলাকায়।

সরে জমিনে ঘুরে এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, ঘুর্ণিঝড় আম্ফান ও ইয়াসে কয়রা উপজেলার ২১টি স্থানে ২০ কিঃমিঃ ভেঙ্গে প্লাবিত হয়। অনেকেই সব কিছু হারিয়ে বেড়িবাধের উপর আশ্রয় নিয়েছিল, আবার অনেকেই ছেড়েছে মাতৃভূমি। ষাটের দশকে নির্মিত ভঙ্গর বেড়িবাধ বার বার ভাঙ্গনের কারণে উপকূলবাসীর ভোগান্তি ও আতঙ্কের কথা চিন্তা করে স্থানীয় সংসদ সদস্য আক্তারুজ্জামান বাবুর নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি ও এলাকাবাসীর প্রাণের দাবি হিসেবে তার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় খুলনার কয়রায় ভঙ্গুর বেড়িবাঁধ এখন অধিকাংশ জায়গায় দৃশ্যমান, চওড়া ও প্রশস্ত। মাটির কাজ ও জিওব্যাগ (জিও টেক্স) দ্বারা অধিকাংশ জায়গায় কাজ করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, জাইকা এবং জরুরি ভিত্তিতে সে কাজগুলো করা হয়েছে। কেটেছে উপকূলবাসীর আতঙ্ক। স্বস্তির নিঃশ্বাস এখন উপকূলজুড়ে। এখন বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে সব কিছু হারানো মানুষের ভাগ্য বদলাতে শুরু করেছে। লবণ পানির আগ্রাসন থেকে বেঁচে স্বাভাবিক পরিবেশে আসতে পেরে এলাকায় চলছে ঈদ সম আনন্দ।

বেড়িবাঁধের ভাঙনের স্থায়ী সমাধানের জন্য এ অঞ্চলে মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল টেকসই বেড়িবাঁধ। কয়রাবাসীর দীর্ঘ চাওয়া-পাওয়ার স্বপ্নও বাস্তবায়ন হতে চলেছে। লোনা পানির অভিশাপ থেকে কয়রাকে মুক্ত করতে নদীতে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের জন্য গত ২৩শে নভেম্বর একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কয়রা উপজেলার পোল্ডার নং-১৪/১ টেকসই বাঁধ নির্মাণের জন্য ১ হাজার ১৭২ কোটি টাকার বৃহৎ একটি প্রকল্প পাস করেন যা একটি প্রকল্প টেন্ডার হয়েছে। এটাসহ জাইকার অর্থায়নে ৩শ ৪০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৪ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ নির্মিত হয়েছে। ষাটের দশকের ভঙ্গুর বেড়িবাঁধ সংস্কার, চওড়া, প্রশস্তকরণ এখন দৃশ্যমান। উপকূলবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি স্থায়ী বেড়িবাঁধ নির্মাণের বৃহৎ প্রকল্প পাস হওয়ায় স্বপ্ন পূরণ হওয়ার আনন্দে উচ্ছ্বাসিত তারা।

দক্ষিণ বেদকাশি ইউনিয়নের বাসিন্দা আবু সাঈদ খান বলেন, অসহায় মানুষের কান্নার আওয়াজ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কানে পৌঁছলে মমতাময়ী মা কখনই কাউকে খালি হাতে ফিরিয়ে দেন না। সিডর, আইলা, আম্ফান, ইয়াস, ফনি, বুলবুলের আঘাতে বিধ্বস্ত কয়রা-পাইকগাছার মানুষের কান্নায় ব্যথিত স্থানীয় সংসদ সদস্য আক্তারুজ্জামান বাবু। তার নিরলস পরিশ্রমের অবিস্মরণীয় অর্জন ষাটের দশকের নির্মিত ভঙ্গুর বেড়িবাঁধ সংস্কার করে দুর্যোগের ঝুঁকি থেকে উপকূলবাসীকে রক্ষা করা ও স্থায়ী বেড়িবাঁধ নির্মাণ প্রকল্পের বরাদ্দ ফলস্বরূপ।আমরা আজ বেড়িবাঁধ ভাঙ্গনের ঝুঁকি মুক্ত আছি। দীর্ঘ দিনের আতঙ্ক কেটেছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও কয়রা সদরের ইউপি চেয়ারম্যান এসএম বাহারুল ইসলাম বলেন, প্রাকৃতিক সম্পদে পরিপূর্ণ এ অঞ্চলে ব্রিটিশ আমলের ভঙ্গুর বেড়িবাঁধের কারণে প্রকৃতির বিরূপ আচরণের প্রথম ও প্রত্যক্ষ শিকার সব সময়েই। বিগত ১২ বছরে সিডর, আইলা, আম্ফান, ইয়াসে সুন্দরবন এবং ওই এলাকার মানুষ ও অন্যান্য প্রাণিসম্পদের ওপর দুর্বিষহ ও নেতিবাচক প্রভাব-প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। আমাদের স্থানীয় সংসদ সদস্য আক্তারুজ্জামান বাবু ভাইয়ের পরিশ্রমে ভঙ্গুর বেড়িবাঁধ এখন দৃশ্যমান এবং চওড়া ও প্রশস্ত। উপকূলের মানুষ এখন দুর্যোগের হাত থেকে অনেকাংশে ঝুঁকিমুক্ত। এ অঞ্চলে প্রকৃতির বিরূপ প্রভাবের হাত থেকে রক্ষাসহ অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সামগ্রিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত হতে শুরু করেছে।

সাতক্ষীরা ডিভিশন-২-এর সেকশন অফিসার সুমন আলী জানান,ষাটের দশকের নির্মিত বেড়িবাধে কয়রায় গত ৩ বছরে উপজেলার ১২০ কিঃমিঃ বেড়িবাধেঁর মধ্যে প্রায় ৬০ কিলোমিটার ভঙ্গুর বেড়িবাঁধ মাটি ও জিওব্যাগ দ্বারা সংস্কার করা হয়েছে। বর্তমানে ঝুকিপূর্ণ বেড়িবাঁধেরও কাজ চলমান আছে। টেকসই বেড়িবাঁধের পাস হওয়া মেগা প্রকল্প সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বেড়িবাঁধ প্রকল্পের আওতায় রয়েছে দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়ন ও উত্তর বেদকাশী ইউনিয়নের প্রায় ৩২ কিলোমিটার বাঁধ সংস্কার ও পুনর্নিমাণ। পুরনো কিছু ব্লকের সংস্কারসহ মাটি, জিওব্যাগ দিয়ে নতুনভাবে নির্মাণ, বাঁধে ব্লক ডাম্পিং, ব্লক স্থাপন প্রক্রিয়া রয়েছে এ প্রকল্পের আওতায় প্রকল্পটি টেন্ডার হয়েছে যা আগামী মাসের মাঝামাঝিতে প্রকল্পটির বাস্তবায়ন কাজ শুরু হবে, যা ২০২৪ সালের শেষের দিকে শেষ হবে বলে আশা করা হচ্ছে। হরিণখোলা গ্রামের আল আমিন ইসলাম বলেন, ঝড় বাতাসের শব্দ শুনলেই ভঙ্গুর বেড়িবাঁধের কারণে আমরা আতংকিত সহ নদী গর্ভে ভিটে মাটি হারানোর ভয়ে থাকতাম। বর্তমানে আমাদের বেড়িবাঁধ হওয়ায় আতংক কেটেছে। এখন আমরা খেয়ে-পরে স্বাভাবিক ভাবে জীবীকা নির্বাহ করতে পারছি। গোবরা গ্রামের ৬০ উর্ধ্ব বয়সের করিম চাচা এ প্রতিনিধিকে বলেন, ছোট কালে বেড়িবাঁধের কাজ দেখেছি, আর এখন আমাদের বর্তমান এমপি সাহেবের উদ্যোগে বেড়িবঁাধ হওয়ার কারনে আমাদের দূর্দশা কেটেছে। লোনা পানিতে প্রায় সময় ডুবে থাকা থেকে ও খাবার পানির সংকট থেকে মনে হয় রেহাই পেয়েছি। কয়রা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইমতিয়াজ উদ্দিন বলেন, গত কয়েক বছরে ষাটের দশকের নির্মিত বেড়িবাঁধে আমরা কাজ করতে দেখেছি। যা ইতো পূর্বে কয়েক দশকেও হয়নি। যা আশানুরুপ কয়রা উপজেলার বেড়িবাঁধ অনেকটা ঝুকিমুক্ত। তবে এখনও কিছু কিছু স্থানের বেড়িবাঁধ কিছুটা দুর্বল আছে। তবে সর্বপরি ঝড়ের সংকেত শুনলেই আগের মত আতংকে থাকতে হয় না এলাকাবাসীর। তবে দ্রুত মেগা প্রকল্পটি বাস্তবায়নের দাবী জানান তিনি। উক্ত মেগা প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে এ অঞ্চলে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে।

তথ্যানুসন্ধানে ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, কয়রা-পাইকগাছার গণমানুষের অভিভাবক আলহাজ্ব আকতারুজ্জামান বাবু কয়রা-পাইকগাছার বন্যাকবলিত লোনা পানির মানুষের দুর্দশার চিত্র বারবার জাতীয় সংসদে তুলে ধরেছেন। উপকূলের অবহেলিত জনসাধারনকে লোনা পানির ছোবল থেকে বাঁচাতে ছুটে বেড়িয়েছেন মন্ত্রণালয় থেকে সচিবালয় পর্যন্ত। বিধ্বস্ত উপকূলবাসীর হা-হুতাশ, হাহাকারের আর্তনাদ খুলনা শহরসহ রাজধানী ঢাকায় বিভিন্ন আলোচনা সভা, সেমিনার, সিম্পোজিয়াম, মতবিনিময় সভা আয়োজনের মাধ্যমে জননেত্রী শেখ হাসিনা ও ঊর্ধ্বতন মহলের কাছে তুলে ধরেছেন। টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণে এমপি বাবু জাতীয় পর্যায়ে জনমত গঠন করতে দিন-রাত পরিশ্রম করেছেন, যার ফসল কয়রা উপজেলা বেড়িবাঁধ এখন ঝুঁকিমুক্ত ও বেড়িবাঁধ নির্মাণের বৃহৎ প্রকল্প পাস হয়েছে।

খুলনা-৬ আসনের সংসদ সদস্য আক্তারুজ্জামান বাবু বলেন, উপকূলীয় অঞ্চল লোনা পানিতে ষাটের দশক হতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বর্তমানে বেড়িবাঁধের কাজ হওয়ায় ঝুকিমুক্ত আছে উপকূলের মানুষ। মানুষের ভোগান্তি ও অপরিমেয় ক্ষতি মমতাময়ী জননী শেখ হাসিনার সুদৃষ্টিতে আনতে মিটিং, সিম্পোজিয়াম, সভা, সংবাদ সম্মেলনসহ জাতীয় সংসদে একাধিকবার উপস্থাপন করেছি। অবশেষে বঙ্গবন্ধুকন্যা উপকূলবাসীর আর্থসামাজিক উন্নয়নসহ লোনা পানির অভিশাপ থেকে মুক্তি পেতে স্থায়ী টেকসই বেড়িবাঁধ প্রকল্প উপহার দেন। যা ইতিমধ্যে টেন্ডার হয়েছে। স্থায়ী বেড়িবাঁধের এ প্রকল্পের কাজ দ্রুত শুরু হবে। ফলে কয়রাবাসীর জীবনযাত্রার মানোন্নয়নসহ মুক্ত হবে লোনা পানির অভিশাপ থেকে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

একাধিক নিউজ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error: Content is protected !!