বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ১১:৫৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
শিরোনাম:
একমাত্র আওয়ামীলীগই স্বাধীনতার স্ব-পক্ষের দল মেহের আফরোজ চুমকি এমপি রাজগঞ্জের ঝাঁপায় ঈদ পুণর্মিলনী অনুষ্ঠান ও বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত  সিলেট ও সুনামগঞ্জের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের উদ্ধারে সেনাবাহিনীর দায়িত্বপ্রাপ্ত মোবাইল নং ১৪তম মালয়েশিয়া গিফটস ফেয়ার এ বাংলাদেশ-এর অংশগ্রহণে উপচে পড়া ভিড় স্টলে  শ্রীনগরে সাংবাদিকের উপর আঃলীগ নেতার হামলার প্রতিবাদে এলাকাবাসীর মানববন্ধন কালিগঞ্জে শেখ হাসিনার আদর্শের সৈনিক হিসেবে দেশের তরে কাজ করবো মেহের আফরোজ চুমকি এমপি শ্রীপুরের প্রয়াত শিক্ষক কাজী ফয়জুর রহমানের স্মরণে শোকসভা ইলেকশন মনিটরিং ফোরামের চেয়ারম্যান যুক্তরাজ্য ও তুরস্ক সফর যশোরে লোকসানে চামড়া বিক্রি করে ফিরে আসছেন ব্যবসায়ীরা পানিতে তলিয়ে আছে সুনামগঞ্জের অনেক এলাকা যশোরে প্লাস্টিক কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ড শ্রীনগরে পূর্ব শত্রুতার জেরে সাংবাদিকের উপর নৃশংস হামলা থানায় অভিযোগ  সিরাজগঞ্জ তাড়াশে মাংস ভাগাভাগি নিয়ে সংঘর্ষে নারীসহ আহত ১০ মোটরসাইকেলের ধাক্কায় চালক ও বৃদ্ধা নিহত ঝিকরগাছায় মধ্যবিত্তদের মাঝে শাড়ি-লুঙ্গি বিতরণে ঈদ সুপার সপ কুরবানি কর মনের পশু টুংটাং শব্দে শেষ মুহূর্তে ব্যস্ত সময় পার করছেন কর্মকারেরা  ঈদে সড়কে ঘরমুখী মানুষের চাপ  গাজীপুরে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ সলঙ্গায় অজ্ঞাত ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরহী  এক যুবক নিহত খাগড়াছড়িতে শতাধিক ঔষধি ও ফলজ সহ বৃক্ষরোপণ করেন পুলিশ সুপার মুক্তা ধর পিপিএম (বার) ঘূর্ণিঝড়ের রেমালে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটার পক্ষ থেকে নগদ অর্থ প্রদান বিআরটিএ অফিসের শত দালালের মাঝে একজন পরিশ্রমি ভালো মানুষ মো: কামরুজ্জামান সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সম্মুখে মানববন্ধন কর্মসূচি উপজেলা বাসীকে পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম শালু নড়াইলে মাছের ঘেরে গোসল করতে গিয়ে কিশোরের মৃত্যু ডুমুরিয়ায় ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ  নড়াইলে সড়ক দূর্ঘটনায় যুবক নিহত সাতক্ষীরা-য় কৃষক দলের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত  শ্রীপুরের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে গরুসহ গোয়াল পুড়ে ছাই  দেশ বাসীকে পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন  সংসদ সদস্য এ্যাড. বিপ্লব হাসান

কয়রার খরস্রোতা কপোতাক্ষ নদ এখন সরু খালে পরিণত

উপজেলা / জেলা-প্রতিনিধি / ১৩ বার পড়া হয়েছে
সময় বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ১১:৫৯ অপরাহ্ন

সুমন হাসান কয়রা (খুলনা) প্রতিনিধি:
দক্ষিণ বঙ্গের ঐতিহ্য খরস্রোতা কপোতাক্ষ নদ এখন পাঁচ-ছয় ফুটের সরু খালে পরিণত হয়েছে। কপোতাক্ষ নদটি যশোর হয়ে খুলনার কয়রা উপজেলার বুক চিরে শিবসা নদীতে গিয়ে মিশেছে। এই নদের স্রোত আর গভীরতা নিয়ে নানা কাব্য, কবিতা প্রচলিত আছে। কপোতাক্ষ নদের বুক চিরে চলাচল করা লঞ্চ আর মাছ ধরার স্মৃতি এখনো হাতড়ে বেড়ায় ওই এলাকার মানুষ। তবে এর সবই এখন অতীত। এ নদীর দৈর্ঘ্য ১৮০ কিলোমিটার এ টি ৮০০ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে অবস্থিত। বর্তমানে নদীটি খালে পরিণত হয়েছে। কয়রার আমাদী এলাকা থেকে পাশের পাইকগাছা উপজেলার বোয়ালিয়া পর্যন্ত ৫০ কিলোমিটার খরস্রোতা কপোতাক্ষ নদের অংশটি প্রাণ হারিয়েছে আরও আগে।
দুই বছর ধরে চলছে জরাজীর্ণ অবস্থা। এক সময়ের ১৮০ কিলোমিটার প্রশস্ত নদটি এখন পরিণত হয়েছে সরু খালে। ভাটায় সেখানে নৌকা চালানো যায় না। হেঁটেই পার হয় মানুষ। মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাওয়া কপোতাক্ষের এমন মৃত্যু দেখে শঙ্কার কথা বলেছেন এলাকার মানুষ। তাঁরা বলছেন, নদটি বাঁচানো না গেলে ভবিষ্যতে আরও খারাপ দিন আসবে। কারণ, কয়রা উপজেলা ও পাইকগাছা উপজেলার অধিকাংশ এলাকার পানি কপোতাক্ষ নদ দিয়েই নিষ্কাশিত হয়। নদ না থাকলে ভবিষ্যতে ওই এলাকায় স্থায়ী জলাবদ্ধতার আশঙ্কা রয়েছে। সরেজমিনে কয়রার আমাদী এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, বিশাল নদটি সরু খালের মতো প্রবাহিত হয়ে কোনো রকমে টিকে আছে। নদের দুই পাশে জেগেছে বিশাল চর। সেখানে চলছে দখলের উৎসব। চর দখল করে বাড়ি ঘর থেকে শুরু করে, চিংড়ি ঘের সহ বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। কয়রার আমাদী এলাকার কপোতাক্ষের পাশেই নজরুল ইসলাম গাজীর বাড়ি। পুরোনো স্মৃতি রোমন্থন করে তিনি বলেন, একসময় তাঁর বাড়ির পাশেই ছিল লঞ্চঘাট।
নদের ওপর দিয়ে নানান ধরনের নৌযান চলাচল করত। ১০-১২ বছর আগেও এই নদে প্রবল স্রোত ছিল, ছিল জোয়ার-ভাটার খেলা। কিন্তু কপোতাক্ষের দিকে তাকালে এখন সে কথা বিশ্বাস করাই কঠিন। অচিরেই সংস্কার ও খনন কাজ না করলে জলাবদ্ধতার কাল গ্রাসে চরম দূর্ভোগে পড়ার উপক্রম হয়ে পড়েছে। তিনি কর্তৃপক্ষের কাছে দৃষ্টি আকর্ষণকরেছেন। কপোতাক্ষ নদের পাড়ে মসজিকুড় গ্রামের বাসিন্দা ষাটোর্ধ্ব সাঈদুর রহমান বলেন, ‘আমার যৌবনে এই কপোতাক্ষ নদেরও যৌবন ছিল চোখে পড়ার মতো। দূর থেকেই এই নদের গর্জন শোনা যেত। আমাদী তেরো আউলিয়া বাঁধের কপোতাক্ষ নদের গর্জনের কথা স্মৃতি হয়ে মনের কুঠিরে দোলা দেয়। আমি এখন বৃদ্ধ হয়ে গেছি, আর কপোতাক্ষ নদও শুকিয়ে গেছে। নাব্যতা হারিয়ে ফেলেছে।আমি যেমন অর্ধেক মৃত, কপোতাক্ষ নদও তেমন। আগে নদে ১৫-২০ হাত পানি ছিল। দুই বছর ধরে ভাটির সময় নৌকাও চলে না। এলাকার পানি নিষ্কাশনের মাধ্যম কপোতাক্ষ নদ।
কিন্তু নদের ভরাটের কারণে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। ভবিষ্যতে চরম দূর্ভোগে পড়তে হবে এ অঞ্চলের মানুষদের। তিনি কর্তৃপক্ষের কাছে নদ পূনঃ খননের দাবি জানান। সুন্দরবন ও উপকূল সুরক্ষা আন্দোলনের সংগঠক বলেন, উপকূলীয় উপজেলা কয়রা এমনিতেই দুর্যোগের ঝুঁকিতে আছে। এরপর কপিলমুনিতে সেতু নির্মাণের নামে পিলার স্থাপন করে ২০ বছর ধরে কপোতাক্ষের পানিপ্রবাহ বাধাগ্রস্ত করায় নদটি মৃতপ্রায়। অথচ এই কপোতাক্ষ নদের প্রবাহ স্বাভাবিক না রাখতে পারলে কয়রা উপজেলার কপোতাক্ষপারের মানুষের জীবন-জীবিকায় আরও বিপর্যয় নেমে আসবে। দক্ষিণ অঞ্চলের নদী গুলোতে পলি জামাতে জোয়ার ভাটার উত্থান পতন থমকে গেছে।
বৃষ্টির পানি নদে পড়তে সে পানি দ্রুত নিষ্কাশনের সুযোগ হারিয়ে যাওয়ায় এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। তিনি নদ পূনঃ খনন কাজ দ্রুত পদক্ষেপ নিতে কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টির জন্য দাবি জানান। লবণ পানির মৎস্য চাষের ফলে মাটির উপরের অংশ বটেই, মাটির তলদেশে ও লবনাক্ত হয়ে গেছে। এলাকার মানুষ গভীর নলকূপ বসিয়েও মিষ্টি পানির সন্ধান পাচ্ছেন না। যার ফলে দক্ষিণ অঞ্চলের মানুষ এখন পানির সঙ্কটে পড়েছেন। পানি উন্নয়ন বোর্ড সুত্র জানান, কপোতাক্ষ নদের জলাবদ্ধতা দূরীকরণ প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্যায়ে ২০২৪ সালের মধ্যে খুলনার পাইকগাছা বোয়ালিয়া থেকে কয়রা উপজেলার আমাদী পর্যন্ত ৩০ কিলোমিটার কপোতাক্ষ নদ পুনঃখনন করা হবে। এ খননকাজ শেষ হলে কয়রা ও পাইকগাছা উপজেলার জলাবদ্ধতা নিরসন হবে। সঙ্গে সঙ্গে নৌপথে ব্যবসা-বাণিজ্যসহ যোগাযোগ ব্যবস্থা সুগম হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

একাধিক নিউজ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
error: Content is protected !!